নিষেধ করছে WHO, তা সত্বেও হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইনে ভরসা রাখছে ICMR

নয়াদিল্লি : হু জানিয়েছিল মৃত্যুর হার বাড়তে পারে হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইনের ব্যবহারে। তবে সেই বিবৃতি মানতে রাজি নয় ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ। তারা জানিয়েছে এইচসিকিউ-র ব্যবহারে ঝুঁকি কতটা রয়েছে বা এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কতটা, তা সম্পর্কে অবগত আইসিএমআর। তবে তাঁদের পর্যবেক্ষণ করোনা আক্রান্তদের যেসব চিকিৎসক চিকিৎসা করছেন, তাদের সুরক্ষার জন্য এইচসিকিউ-র ভূমিকা অস্বীকার করা যায় না।

মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলনে আইসিএমআরের ডিরেক্টর জেনারেল বলরাম ভার্গব জানান, এইচসিকিউ নিয়ে কাজ চালিয়ে যাবেন তাঁরা। তবে হঠাতই হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল বন্ধ করা হয়েছে বলে জানিয়ে দেয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। বিশ্বের অন্যতম মেডিক্যাল জার্নাল ‘ল্যানসেট’ গতসপ্তাহে একটি সমীক্ষায় জানায়, অ্যান্টি-ম্যালেরিয়াল এই ওষুধ ব্যবহারে কোভিড-১৯ রোগীদের মৃত্যুর সম্ভাবনা আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। এমন তথ্য প্রকাশিত হওয়ার পরের সপ্তাহে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে হু বলে জানান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেডরোস।

টেডরস জানিয়েছে, করোনা ভাইরাসের সম্ভ্যাব্য চিকিৎসার খোঁজে ‘সলিডারিটি ট্রায়ালে’র জন্য বিশ্বের একাধিক দেশের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদের নাম নথিভূক্ত করা হয়েছিল। সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবেই তা বন্ধ করা হয়েছে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল। অন্যক্ষেত্রে তা চলছে বলেও জানান হয়েছে সংস্থার তরফে। হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন সাধারণত আর্থারাইটিসের জন্য ব্যবহার হয়ে থাকে।

ভার্গব জানাচ্ছেন, মার্চ মাস থেকেই এইচসিকিউ-র ব্যবহার নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা চালাচ্ছে আইসিএমআর। কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পাওয়া গেলেও, এর ভূমিকা করোনা প্রতিরোধে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। তাই আইসিএমআর এর অনুমোদন বাতিল করছে না। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও এই ওষুধকে কাজে লাগাচ্ছে। প্রতিকারও মিলেছে।

পর্যবেক্ষণমূলক পরীক্ষায় পাশ করেছে এইচসিকিউ, জানাচ্ছে আইসিএমআর। তাই এই ওষুধ নিয়ে কাজ চলবে বলে জানিয়ে দিয়েছে এই সংস্থা। খুব বড় পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া না থাকলেও এই ওষুধ খেলে বমিভাব, ঝিমুনি ও অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের সমস্যা দেখা দিতে পারে বলে জানিয়েছে আইসিএমআর।

উল্লেখ্য, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়ে ছিলেন, হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন খেয়ে তিনি ভালো আছেন। যার ফলে একবারে অনেক কেনার ছবি সামনে এসেছে। শুধু তাই নয়, ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের পাশাপাশি অ্যান্টি-ম্যালেরিয়াল ক্লোরোকুইনও অল্প করোনা আক্রান্তদের ক্ষেত্রে ব্যবহারের উপদেশ দিয়েছেন।

ট্রাম্পের অনুরোধে ভারত ৩৫.৮২ লক্ষ ট্যাবলেট পাঠিয়েছে। সঙ্গে ৯ মেট্রিক টন ওষুধ তৈরির সামগ্রীও পাঠানো হয়েছে। শুধু আমেরিকা নয়, প্রাথমিকভাবে বিশ্বের বহু দেশে করোনা ভাইরাস মোকাবিলা করার ওষুধ হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন পৌঁছে দিয়েছে ভারত।

The post নিষেধ করছে WHO, তা সত্বেও হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইনে ভরসা রাখছে ICMR appeared first on Kolkata24x7 | Read Latest Bengali News, Breaking News in Bangla from West Bengal's Leading online Newspaper.



from Kolkata24x7 | Read Latest Bengali News, Breaking News in Bangla from West Bengal's Leading online Newspaper
Source Url: https://www.kolkata24x7.com/we-analysed-hcq-risks-and-benefits-will-continue-to-recommend-for-prevention-icmr-chief/

Post a Comment

0 Comments